লাইফস্টাইল

হাতে কলমে শিখলে থাকবেনা তুমি বেকার;প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম।

মেহেদী হাসান শিয়াম,

শিক্ষক মানেই মনে আসে একরাশ শ্রদ্ধা এবং মানুষ হয়ে ওঠার পথে এক পথ-প্রদর্শক।জীবনে চলার পথে যেমন বাবা-মায়ের ভূমিকা থাকে, তেমনই একজন শিক্ষকেরও সমান ভূমিকা থাকে অনেক।
আমারো একজন শিক্ষক আছেন ঠিক সেই রকম তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার বিনোদপুর ইউনিয়নের বিশ্বনাথপুর গ্রামের বাসিন্দা মোঃ মোফাজ্জুল হকের কনিষ্ঠ সন্তান মোঃ শফিকুল ইসলাম। ১৯৮৬সালের পহেলা ফেব্রয়ারি এক কৃষক পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন তিনি।২০০১সালে এসএসসি পাস করে হাতে কলমে শিক্ষার জন্য নিজের এলাকা ত্যাগ করে ভর্তি হলেন ঢাকায় ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং এ।তিনি নিজের খরচ নিজে চালানোর জন্য পড়ালেখার পাশাপাশি পাট টাইম কাজ করতেন বিভিন্ন আইটি ফার্মে । ইচ্ছে ছিল কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার তাই কম্পিউটার সায়েন্স ইঞ্জিনিয়ারিং এ (CSE) সম্পূর্ণ করে পরবর্তীতে ইলেকট্রনিক্স এন্ড কমিউনিকেশন বিষয়ে এমএসসি করেন কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ব-বিদ্যালয়ে,পড়ালেখা শেষ করে ভাবলেন,তিনি যাকিছু শিখেছেন সবকিছু অন্যকে শেখাবেন এর জন্য খুললেন একটি কলেজ ২০১২ সালে, নাম দিলেন ইম্পেরিয়াল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট।২০১৪ সালে আরোও একটি স্কুল প্রতিষ্ঠা করলেন নাম দিলেন ইম্পেরিয়াল ইন্টারন্যাশনাল স্কুল,যেখানে ছাত্রছাত্রীরা প্লে থেকে দশম শ্রেনী পর্যন্ত পড়ালেখা করতে পারবে।বেকারত্ব দুরিকরনের লক্ষে তিনি পতিষ্ঠিত করেন ইম্পেরিয়াল আইটি বিডি আইটি ফার্ম যেখানে দরিদ্র অভাবি শিক্ষার্থীরা হাতে কলমে প্রশিক্ষন অর্জন করে নিজের পড়ালেখার খরচ নিজেই অতিবাহিত করছেন অনেক শিক্ষার্থী।বর্তমানে ইম্পেরিয়াল পরিবারে কর্মরত আছেন প্রায় ৭০ জন শিক্ষক কর্মকর্ত -কর্মচারি।
আমার জীবনে এরকম শিক্ষক কখনো পায়নি,সবার সাথে মিলেমিশে কথা বলে,বেহুদা বেপরোয়া কথাগুলো এড়িয়ে চলে,এককথায় একজন আদর্শ শিক্ষক হতে যা যা দরকার আমার প্রিয় শিক্ষক শফিকুল স্যারের মধ্যে তাই আছে।তিনি সবসময় শিক্ষার্থীদের বলে,হাতে কলমে শিক্ষা অর্জন করে প্রতিষ্ঠিত হও,তাহলে তোমার বেকারত্ব দূর হবে,নিজেকে মানুষের মতো মানুষ গড়তে হলে উত্তম চরিত্রের অধিকারী হতে হবে।শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের বলে,বর্তমান সরকার শিক্ষা বান্ধব সরকার শিক্ষা ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দিচ্ছেন কারিগরি শিক্ষাকে তাই আপনাদের সন্তানকে কারিগরি শিক্ষায় শিক্ষিত করুন বেকারত্ব দূর করুন,একমাত্র কারিগরি শিক্ষাই পারে দারিদ্র মুক্ত বাংলাদেশ গড়তে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Close
Close